আন্তর্জাতিক

প্রয়োজনে নেপালি সেনারা যুদ্ধ করবে – ভারতকে হুংকার দিলো ছোট্ট নেপাল

বহুদিন আগে থেকে ভারত নিজেদেরকে বিতর্কিত ভূখণ্ড কালাপানি এবং বিপক্ষে নিজেদের বলে দাবি করে প্রয়োজনে যুদ্ধের জন্যও প্রস্তুত, সীমান্ত দ্বন্দ্বে ভারতকে হুঁশিয়ারি নেপালের। কিন্তু বর্তমান সময়ে ভারতের দাবি করা এই দুইটি ভূখণ্ডকে নিজেদের মানচিত্র ভুক্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। নিজেদের মানচিত্রে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য ভারতের বিপক্ষে রীতিমতো রণহুঙ্কার দিয়েছে। আয়তনে ক্ষুদ্র দেশটির সেনাবাহিনী রয়েছে বর্তমানে তবে তা প্রয়োজনের তুলনায় খুবই কম। কিন্তু তা সত্বেও পারমাণবিক শক্তিধর ভারতের যুদ্ধের হুংকার দিয়েছেন নেপাল।

সম্প্রতি ‘দ্য রাইজিং নেপাল’ পত্রিকাকে একটি সাক্ষাৎকার দিয়েছেন নেপালের উপ-মুখ্যমন্ত্রী ও প্রতিরক্ষা মন্ত্রী ঈশ্বর পোখরেল। কালাপানি সীমান্তে দু’দেশের মধ্যে চলা বিবাদ নিয়ে পোখরেল বলেন, “ভারতীয় সেনাপ্রধান মনোজ মুকুন্দ নারাভানে নেপালের গোর্খাদের ভাবাবেগে আঘাত হেনেছেন। ভারতের জন্য বহু বলিদান দিয়েছেন গোর্খারা। কিন্তু তৃতীয় কোনো শক্তির প্ররোচনায় আমরা কালাপানি সীমান্তে বিবাদ করছি বলে যে অভিযোগ করেছেন ভারতের সেনাপ্রধান তা নিন্দনীয়। প্রয়োজনে নেপালি সেনারা যুদ্ধ করবে।’

শুধু তাই নয়, ভারতীয় সেনাবাহিনীতে কর্মরত গোর্খাদের উসকানি দিতে পোখরেল আরো বলেন, ‘ভারতের জন্য যে গোর্খা সৈনিকরা প্রাণ উৎসর্গ করেছেন তাদের ভাবাবেগে আঘাত করেছেন জেনারেল নারাভানে। ভারতীয় সেনপ্রধানের এহেন মন্তব্যে ভারতীয় সেনার গোর্খা সদস্যরা স্বজাতির কাছে মাথা তুলে দাঁড়াতে পারবেন না।’

ব্রিটিশ আমল থেকেই ভারতীয় সেনায় সাহসিকতার পরিচয় দিয়ে আসছেন গোর্খা সদস্যরা। কারগিল যুদ্ধে গোর্খা রাইফেলস-এর জওয়ানদের রণহুঙ্কার ‘জয় মহাকালী আয়ো গোর্খালি’ শুনে পাকিস্তানি সেনাদের বুক কেঁপে উঠেছিল। বর্তমানে ভারতের ফৌজে প্রায় ৪০টি গোর্খা ব্যাটালিয়ন রয়েছে।

উল্লেখ্য, কয়েকদিন আগেই হিমালয়ের মানস সরোবর পর্যন্ত তীর্থযাত্রা সম্পর্কে ভারত নতুন সড়ক তৈরি করেছেন যা প্রায় ৮০ কিলোমিটার পর্যন্ত লম্বা। ভারতের তৈরি এই ৮০ কিলোমিটার সড়ক নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন এবং তাদের তৈরী সড়ক নিয়েও আপত্তি জানায় নেপাল

সূত্র- সংবাদ প্রতিদিন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close